স্মার্টফোনের আসক্তি কাটিয়ে ওঠার ১০টি কার্যকরী কৌশল

বর্তমানে গ্রাম কিংবা শহরের এমন কিছু ছেলে-মেয়েদের দেখা যায় বিনা কারণে স্মার্টফোনের আসক্তি দ্রুতই পেয়ে বসেছে। তাদের দেখেই অনেক কম বয়সের বাচ্চারাও সেই আসক্তিতে পরিণত হচ্ছে।

এদের মধ্যে কেউ মোবাইলে গেম খেলছে, আবার কেউ ইউটিউব ভিডিও দেখছে, আবার কেউ ফেসবুকে রিলস ভিডিও দেখছে।

তাদের মতই আপনাও যদি মোবাইলের আসক্তি পেয়ে বসে, তাহলে আপনার জীবনের একটি বড় ধরণের আসক্তিতে পরিণত হতে পারে। মোবাইল ফোনের উপকারিতা যেমন রয়েছে, তেমনটি আবার বিনা কারণে ব্যবহার করার কারণেও অপকারিতাও রয়েছে।

যাইহোক, অত্যাধিক স্মার্টফোনের ব্যবহার ধীরে ধীরে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে মানসিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাবিত করছে।

আপনি যদি আপনার ফোনের স্ক্রিন থেকে নিজেকে দূরে রাখতে না পারেন, সেইক্ষেত্রে স্মার্টফোনের আসক্তি দূর করার জন্য এখানে থাকা ১০টি সহজ টিপস অনুসরণ করতে পারেন। তাহলে দেখবেন ধীরে ধীরে মোবাইলের আসক্তি থেকে বেরিয়ে আসার সঠিক কৌশল খুঁজে পেয়ে পাবেন।

স্মার্টফোনের আসক্তি দূর করার উপায়

স্মার্টফোনের আসক্তি কমানোর উপায়

স্মার্টফোন ব্যবহারের নির্দিষ্ট সময় সেট করুন

স্মার্টফোন ব্যবহারের জন্য নির্দিষ্ট সময় এবং স্থান নির্ধারণ করুন। এই স্ক্রিন টাইমগুলি আপনার বাস্তব-জীবনের ক্রিয়াকলাপগুলিকে সঠিক সময় তৈরি করতে সাহায্য করবে।

প্রয়োজনীয় নোটিফিকেশনগুলি সীমিত করুন

ক্রমাগত আপনার ফোনে বিভ্রান্তিকর চেক করার তাগিদ কমাতে অপ্রয়োজনীয় নোটিফিকেশনগুলি বন্ধ করুন৷

গুরুত্বপূর্ণ পরিচিতি বা অ্যাপ্লিকেশানগুলি থেকে বিজ্ঞপ্তিগুলিকে অগ্রাধিকার দিন এবং সোশ্যাল মিডিয়া সহ গেমিং অ্যাপগুলির বিজ্ঞপ্তিগুলি বন্ধ করুন৷

সচেতনতা অনুশীলন করুন

আপনার স্মার্টফোনের ব্যবহার সম্পর্কে সচেতন হন। সচেতনতা তৈরি করতে বা একঘেয়েমি থেকে আপনার ফোনের কাছে পৌঁছানোর অভ্যাস ভাঙতে গভীর শ্বাস নেওয়া, ধ্যান বা হাঁটার মতো কৌশলগুলি অনুশীলন করার চেস্টা করুন।

Space are available for Ads
Space are available for Ads

স্ক্রিন টাইম ট্র্যাকিং অ্যাপ ব্যবহার করুন

আপনার স্মার্টফোনের অত্যধিক ব্যবহারের ধরণ সনাক্ত করতে স্ক্রিন টাইম ট্র্যাকিং অ্যাপ ব্যবহার করুন। 

এই অ্যাপগুলি আপনার স্ক্রীন টাইম অন্তর্দৃষ্টি প্রদান করবে। তাছাড়া আপনার ফোন ব্যবহার কমানোর বিষয়ে সচেতন সিদ্ধান্ত নিতে দেয়।

বিকল্প ক্রিয়াকলাপ খুঁজুন

আপনার স্মার্টফোনের উপর নির্ভরতা কমাতে মোবাইল ফোনের স্ক্রিনে জড়িত না হয়ে হাতের ব্যক্তিগত কাজগুলির সাথে জড়িত হন। কাজের পাশাপাশি বাইরে সময় কাটান, ব্যায়াম করুন, বই পড়ুন এবং পরিবারের সদস্যদের সময় দিন। 

এই কাজগুলো আপনাকে বিনোদনের জন্য ডিজিটাল ডিভাইসের উপর নির্ভরতা কমাতে সাহায্য করবে।

প্রযুক্তি কম ব্যবহার করার চেস্টা করুন

আপনার স্মার্টফোনের উপর নির্ভর না করে দিনের শুরু এবং শেষ করতে প্রযুক্তি কম ব্যবহার করার চেস্টা করুন।

সকালে ঘুম থেকে ওঠার সাথে সাথে আপনার ফোন চেক করার পরিবর্তে, ব্যায়াম করুন। একইভাবে, প্রযুক্তির ব্যবহার ছাড়া অন্য কিছু করার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনার রাতের ঘুমকে উৎসাহিত করবে।

Space are available for Ads
Space are available for Ads

সঠিক লক্ষ্য নির্ধারণ করুন

স্মার্টফোনের ব্যবহার কমানোর জন্য অর্জনযোগ্য লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। উদাহরণস্বরূপ, প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক ঘন্টার মধ্যে স্মার্টফোনের স্ক্রীন টাইম সীমিত করুন।

ডিজিটাল ডিটক্স ব্যবহার করুন

ডিজিটাল ডিটক্স পিরিয়ড বাস্তবায়ন করে আপনার স্মার্টফোন থেকে নিয়মিত বিরতি নিন। সপ্তাহে একদিন প্রযুক্তি ব্যবহার থেকে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে অফলাইনে থাকা ক্রিয়াকলাপগুলির সময়সূচী নির্ধারণ করুন৷

আপনার চারপাশের স্ব-যত্নে ফোকাস করতে ডিজিটাল ডিটক্সের এই মুহূর্তগুলি ব্যবহার করুন।

সমর্থন সন্ধান করুন

আপনি যদি স্মার্টফোনের আসক্তি কাটিয়ে উঠতে চেস্টা করছেন, সে জন্য বন্ধু, পরিবার বা পেশাদার পরামর্শদাতাদের কাছ থেকে সহায়তা চাইতে নিতে পারেন।

আপনার লক্ষ্যগুলি বিশ্বস্ত ব্যক্তিদের সাথে শেয়ার করুন। যারা স্ক্রীন টাইম কমানোর জন্য পরামর্শ প্রদান করতে পারে।

বাস্তব জীবনের গুরুত্ব

আপনার সন্তানদের এবং বন্ধুদের অফলাইন ক্রিয়াকলাপগুলির সাথে মোবাইলের স্ক্রিন টাইমের ভারসাম্য বজায় রাখতে বাস্তব জীবনে গুরুত্ব দিন।

পরিশেষে

আজকের এই ডিজিটাল যুগে স্মার্টফোনের নির্ভরতা কমাতে সচেতন হন। তাহলে আপনি স্মার্টফোনের আসক্তি থেকে মুক্ত হতে পারেন।

শারীরিক সুস্থতার উপর নিয়ন্ত্রণ করতে মোবাইল ফোনের আসক্তি কাটিয়ে ওঠার জন্য ধৈর্য, আত্ম-সচেতনতাই একমাত্র প্রয়োজন।

সূত্র:- Right News BD

মন্তব্য করুন

bn_BDBengali