মাথায় নতুন চুল গজায় যেসব তেল ব্যবহার করলে

মাথায় নতুন চুল গজানোর উপায়: বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় মেয়েদের থেকে ছেলেদের মাথার চুল অকালেই পড়ে যায়। সে কারণেই অনেকে চুল পড়া ঠেকাতে বিভিন্ন তেল ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু তাতেও খুব একটা ভালো ফলাফল পেতে ব্যর্থ হন। তাছাড়া চুলের সঠিক যত্ন নিলে অবশ্যই চুল পড়া কমিয়ে মাথায় নতুন চুল গজানো সম্ভব হতে পারে।

সে জন্য আপনার চুলের যত্নে একমাত্র সহায়ক হতে পারে কিছু ভালো মানের তেল। যেগুলো তেল ব্যবহার করলে আপনার মাথার চুল পড়া রোধ করবে।

চলুন তাহলে জেনে নেই মাথার চুল পড়া রোধ করার তেল সম্পর্কে-

মাথায় নতুন চুল গজাতে নারকেল তেলের উপকারিতা

চুলের যত্নের জন্য সর্বাধিক স্বীকৃত তেলগুলির মধ্যে একটি সেটি হল নারকেল তেল। নারকেল তেল ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ যা চুলের গভীরে প্রবেশ করে, আর্দ্রতা এবং পুষ্টি প্রদান করে।

তাছাড়া এটি আপনার চুলকে মজবুত করার পাশাপাশি ভাঙ্গা কমিয়ে নতুন চুল গজানোর জন্য ভালো একটি পরিবেশ তৈরি করতে পারে।

ক্যাস্টর অয়েল মাথায় নতুন চুল গজাতে

এই তেল রিকিনোলিক অ্যাসিডের উচ্চ ঘনত্বের জন্য পরিচিত, ক্যাস্টর অয়েল চুলের ফলিকলগুলিকে অত্যন্ত শক্তিশালী করে বলে বিশ্বাস করা হয়। মাথার ত্বকে ক্যাস্টর অয়েল ম্যাসাজ করলে তা রক্ত সঞ্চালনের বৃদ্ধির পাশাপাশি চুল ঘন কালো ও লম্বা করতে পারে।

বিশেষ করে ক্যাস্টর অয়েলে অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যও রয়েছে যা আপনার মাথার ত্বকের স্বাস্থ বজায় রাখতে সাহায্য কবরে।

জোজোবা তেল

জোজোবা তেল মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য রক্ষার্থে প্রাকৃতিক তেলের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে সাদৃশ্যপূর্ণ। এর ময়শ্চারাইজিং বৈশিষ্ট্য চুল ভাঙ্গা প্রতিরোধ করতে এবং নতুন চুল গজানোর জন্য একটি স্বাস্থ্যকর পরিবেশ তৈরি করতে সাহায্য করে।

অতিরিক্তভাবে, এটি মাথার ত্বকে সিবাম উৎপাদনের ভারসাম্য বজায় রাখতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

মাথায় ঘন ও নতুন চুল গজাতে রোজমেরি তেল

রোজমেরি তেল মাথার ত্বকের সঞ্চালনের সাথে যুক্ত থাকে, যা চুল লম্বা করার অবদান রাখতে পারে। এটিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যও রয়েছে যা মাথার ত্বককে প্রশমিত করতে পারে।

কেরিয়ার অয়েলের সাথে কয়েক ফোঁটা রোজমেরি তেল মিশিয়ে মাথার ত্বকে লাগালে মাথায় ঘন ও নতুন চুল গজাতে ভালো উপকার পাওয়া যাবে।

পেপারমিন্ট তেল

পেপারমিন্ট তেল মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায় বলে বিশ্বাস করা হয়, যা চুলের বৃদ্ধিকে উন্নীত করতে পারে। এর উদ্দীপক ঘ্রাণ প্রয়োগের সময় একটি সতেজ সংবেদনও প্রদান করতে পারে।

যাইহোক, জ্বালা এড়াতে ব্যবহারের আগে পেপারমিন্ট তেল পাতলা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

আরগান তেল

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে সমৃদ্ধ, আরগান তেল মাথার ত্বক এবং চুলের ফলিকলকে পুষ্ট করতে সাহায্য করতে পারে। এটি চুলে উজ্জ্বলতা এবং পরিচালনাযোগ্যতা যোগ করার ক্ষমতার জন্যও পরিচিত।

চুলের বৃদ্ধির জন্য সরাসরি উদ্দীপক না হলেও, সামগ্রিক স্বাস্থ্য সুবিধাগুলি চুলের বৃদ্ধির জন্য আরও অনুকূল পরিবেশে অবদান রাখতে পারে।

বাদাম তেল

বাদামের তেল ভিটামিন ই এবং ওমেগা -৩ ফ্যাটি অ্যাসিডের মতো পুষ্টিতে ভরপুর। যেগুলি আপনার চুলকে পুষ্টি জোগায় এবং একটি স্বাস্থ্যকর মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য উন্নীত করতে পারে।

এই তেলটি নিয়মিত ব্যবহার করলে আপনার চুল মজবুত করতে এবং ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করার পাশাপাশি নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।

মাথায় নতুন চুল গজানোর সর্বশেষ পরামর্শ

অবশ্যই মনে রাখবেন, এই তেলগুলি নিয়মিত ব্যবহার করলে চুলের যত্নে ভালো ফলাফল পাওয়া যেতে পারে। তাড়া নিয়মিত স্ক্যাল্প ম্যাসাজের মাধ্যমেও স্বাস্থ্যকর চুল পাওয়ার জন্য অবদান রাখতে পারে। এতে আপনার মাথায় নতুন চুল গজাতে আরও ভালো পরিবেশ তৈরি করতে পারে।

বিশেষ করে কোনো নতুন তেল ব্যবহার করার আগে চুল পড়া বা মাথার ত্বকের অবস্থার বিষয়ে কোন রকম সমস্যা থাকলে একজন পেশাদার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।।

উপরন্তু, সুষম খাদ্য বজায় রাখা, হাইড্রেটেড থাকা এবং মানসিক চাপ পরিচালনা করলে আপনার মাথার চুলের স্বাস্থ্য বৃদ্ধির জন্য অনেকটাই গুরুত্বপূর্ণ পালন করবে।

সূত্র:- Right News BD

মন্তব্য করুন

bn_BDBengali