পরীক্ষা চলাকালীন সন্তানের দুশ্চিন্তা কাটাতে যা করবেন

শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা চলাকালীন তাদের টেনশন থাকা স্বাভাবিক। তবে অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা শিক্ষার্থীর শরীর ও মনের উপর চাপ তৈরি করে। এ কারণে পরীক্ষার আগে বা ফল প্রকাশের আগে-পরে অনেকেই আশঙ্কা, অবসাদ, উদ্বেগে থাকে।

তাদের এ ধরনের চিন্তা কমাতে বাবা-মাকেই সন্তানের প্রতি আরও যত্নশীল হতে হবে।

তাছাড়া মা-বাবার সহায়তা শিক্ষার্থীদের কাছে সঠিক নিরাপত্তা হিসাবে কাজ করে।

পরীক্ষা চলাকালীন যেভাবে সন্তানের পাশে থাকবেন

অভিভাবকদের সহানুভূতিশীল আচরণ সন্তানদের উদ্বেগ, ভয় এবং অনিশ্চয়তা প্রকাশ করার একটি নিরাপদ আশ্রয়।

মা-বাবারা অনুকূল পরিবেশ তৈরি করলে শিশুরা তাদের আবেগ পরিপূর্ণভাবে প্রকাশ করতে পারে। 

লড়াই করার মানসিকতা

গঠনমূলক কথোপকথন এবং তাদের সন্তানদের কথা শোনার মাধ্যমে মা-বাবারা তাদের চ্যালেঞ্জগুলি কার্যকরীভাবে মোকাবিলা করার সঠিক কৌশলগুলো সম্পর্কে জানাতে পারেন।

অনুশীলন, সময়-ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা কীভাবে পরীক্ষার প্রস্তুতি নেবে সে ব্যাপারে বাবা-মায়েরা সহায়তা করতে পারেন।

Space are available for Ads
Space are available for Ads

ব্যবহারিক সহায়তা

পড়াশোনার সময়সূচি তৈরি, লক্ষ্য নির্ধারণ এবং শিক্ষাগত সহায়তার জন্য মা-বাবার পথ দেখানো খুব জরুরি। শেখার প্রক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে জড়িত থাকার মাধ্যমে, মা-বাবা সন্তানের সহযোগিতা করতে পারেন।

বাবা-মাকে ইতিবাচক কথাবার্তা বলতে হবে। স্টাডি ব্রেক খুব জরুরি। সন্তানের সঙ্গে কথা বলে জানতে হবে কোন বিষয়ে তার সমস্যা হচ্ছে, বুঝতে পারছে না বা পিছিয়ে আছে।

প্রয়োজনে কিছু বিষয়ে শিক্ষক রেখে দুর্বলতা কাটাতে হবে। 

সার্বিক সুস্থতা

পরীক্ষার প্রস্তুতির সময় স্বাস্থ্যকর জীবনধারা সার্বিক ভারসাম্য আনে। মা-বাবার সহানুভূতিশীল আচরণ এই সময়ে তাদের শরীর সুস্থ থাকতে সহায়তা করে।

শিক্ষার্থীদের নিজের প্রতি যত্নশীল হওয়া, অবসর যাপন , সামাজিক মেলামেশা সামগ্রিক সুস্থতাকে উৎসাহিত করে। 

Space are available for Ads
Space are available for Ads

কিভাবে পরীক্ষায় উদ্বেগ কমাবেন

আপনার সন্তানের পরীক্ষা চলাকালীন তার উপর কঠোর হবেন না। কিছুক্ষণের জন্য তাকে আরাম দেওয়ার চেষ্টা করতে পারেন। তাছাড়া কিছু ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত হলে সে হয়তো ভালো বোধ করতে পারে।

সে জন্য আপনার সন্তানের যে সকল শখগুলি রয়েছে সেগুলি বিশেষ করে অনুসরণ করুন এবং এমন কিছু করুন যা আপনি ভাল করেন এটি আপনার সন্তানের আত্মবিশ্বাসকে বাড়িয়ে তুলবে।

এক কথায় বলা যায় আপনার নিজের উপর বিশ্বাস রেখে আপনার সন্তানকে সঠিকভাবে প্রস্তুত করার চেষ্টা করুন। তাহলে অবশ্যই ভাল পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করবে।

সূত্র:- Right News BD

মন্তব্য করুন

bn_BDBengali