অতিরিক্ত চুল পড়া আর নয়: জেনে নিন আপনার চুল পড়া বন্ধ করার ঘরোয়া উপায়

আপনি কি প্রতিদিন আপনার চুল পড়া দেখে চিন্তিত? প্রতিদিন অতিরিক্ত চুল পড়া আপনার জন্য হতাশাজনক মনে হতে পারে। তাই চুল পড়া আর নয়, ঘাবড়াবেন না, আপনার জন্য কিছু সহজ এবং কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে যা আপনাকে এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সাহায্য করতে পারে।

এই নিবন্ধে, আমরা পরীক্ষিতভাবে চেষ্টা করব শুধুমাত্র আপনার অতিরিক্ত চুল পড়া কমিয়ে চুল বৃদ্ধি করার সম্পর্কে:

চুল পড়া একটি সাধারণ সমস্যা যা পুরুষ এবং মহিলা উভয়র দেখা যায়। যদি প্রতিদিন আপনার মাথা থেকে প্রায় ৫০ থেকে ১০০ টি চুল পড়ে যায় সেটি কিন্তু স্বাভাবিক ব্যাপার, তবে অতিরিক্ত চুল পড়া চিন্তার কারণ হতে পারে। সেজন্য আপনাকে চুল পড়ার কারণগুলি বুঝতে হবে এবং এটি থেকে রক্ষা পেতে উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হতে পারে। তাই এখানে, আমরা চুল পড়ার কিছু কারণ নিয়ে আলোচনা করব।

হরমোনের ভারসাম্যহীনতা:

হরমোনের পরিবর্তনের ফলে চুলের বৃদ্ধির উপর প্রভাব ফেলতে পারে। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা, যেমন গর্ভাবস্থায়, প্রসবোত্তর, মেনোপজ বা পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম (PCOS) এর মতো অবস্থার প্রভাব দেখা দিলে অতিরিক্ত চুল পড়ার কারণ হতে পারে। হরমোনের ভারসাম্যহীনতা চুলের বৃদ্ধি হওয়াকে প্রভাবিত করে, যার ফলে চুলের ফলিকল দুর্বল হয়ে অবশেষে চুল পড়ে যায়।

পুষ্টির ঘাটতি:

চুল পড়ার অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে পুষ্টির ঘাটতি। যখন আপনার শরীর পর্যাপ্ত ভিটামিন, খনিজ এবং প্রোটিন পায় না, তখন এটি আপনার চুলের স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলতে পারে। পুষ্টির ঘাটতি, বিশেষ করে আয়রন, জিঙ্ক, বায়োটিন এবং ভিটামিন এ, সি এবং ই, চুলের ফলিকলগুলিকে দুর্বল করে দিতে পারে, যা তাদের ভেঙে যাওয়ার এবং ঝরে পড়ার ঝুঁকি থাকে।

মাথার ত্বকের সংক্রমণ:

ছত্রাক বা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণও কিন্তু চুল পড়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে। এই সংক্রমণগুলি চুলের ফলিকলগুলির ক্ষতির কারণ হতে পারে, যার ফলে চুল পড়ে যায়। মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য ভাল বজায় রাখতে হবে পাশাপাশি মাথার ত্বকের সংক্রমণের সাথে সাথে চুল পড়া রোধ করা গুরুত্বপূর্ণ।

মানসিক চাপ:

মানসিক চাপ হওয়ার কারণেও চুল পড়ার একমাত্র কারণ হতে পারে। আপনি যখন মানসিক চাপ অনুভব করেন, তখন আপনার শরীর স্ট্রেস হরমোন নিঃসরণ করে যা চুল বৃদ্ধি হওয়াকে ব্যাহত করতে পারে। দীর্ঘস্থায়ী মানসিক চাপের কারণে চুল পড়ে যেতে পারে এবং আপনার চুল পাতলা ও ভঙ্গুর হয়ে যেতে পারে। স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট কৌশলগুলি সন্ধান করা, যেমন ব্যায়াম, ধ্যান, বা শখের সাথে জড়িত, চাপের কারণে অতিরিক্ত চুল পড়া কমাতে সাহায্য করতে পারে।

অতিরিক্ত স্টাইলিং এবং তাপ:

স্ট্রেইটনার, ব্লো ড্রায়ারের মতো স্টাইলিং সরঞ্জামগুলির অত্যধিক ব্যবহার, সেইসাথে পার্মিং বা রঙ করার মতো কঠোর রাসায়নিক প্রয়োগের ক্ষেত্রে চুলের ক্ষতি করতে পারে। এছাড়া চুলের স্ট্র্যান্ডগুলিকে দুর্বল করে দেয়। তাপ চুলকে শুষ্ক, ভাঙ্গার প্রবণ করে তুলতে পারে, যার ফলে চুল পড়ে যায়।

ওষুধ এবং চিকিৎসা শর্ত:

ক্যান্সারের চিকিৎসা, ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ এর জন্য ব্যবহৃত ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় চুল পড়তে পারে। তাবে, থাইরয়েড ব্যাধি বা অটোইমিউন রোগের মতো কিছু চিকিৎসায় চুল পড়ার ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে। যদি আপনি মনে করেন যে ওষুধ বা চিকিৎসার কারণেই হয়তো আপনার চুল পড়ার একমাত্র কারণ হতে পারে। সেহেতু এ বিষয়ে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য।

চুল পড়ার সবচেয়ে স্পষ্ট লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল চুল পাতলা হয়ে যাওয়া। আপনার চুলের স্ট্র্যান্ডগুলি সূক্ষ্ম এবং কম ঘন হয়ে গেলে পাতলা হয়ে যায়। আপনি লক্ষ্য করতে পারেন যে আপনার পনিটেল হালকা বা প্রশস্ত মনে হচ্ছে। আপনি যদি সময়ের সাথে সাথে আপনার চুলের গঠন এবং আয়তনে এই পরিবর্তন লক্ষ্য করেন তবে এটি চুল পড়ার ইঙ্গিত হতে পারে।

কিছু ক্ষেত্রে, চুল পড়ার ফলে চুলকানি, জ্বালা বা স্ফীত মাথার ত্বকও হতে পারে। এই চুলকানি সংবেদন, যা স্ক্যাল্প প্রুরিটাস নামে পরিচিত। তবে অতিরিক্ত আঁচড়ের কারণেও চুল পড়তে পারে। আপনি যদি ক্রমাগত চুলকানি বা মাথার ত্বকের কোনও অস্বাভাবিক অবস্থার সম্মুখীন হন, তাহলে একজন পেশাদারের সাথে পরামর্শ করা অপরিহার্য।

যদি আপনার সন্দেহ হয় যে আপনার অতিরিক্ত চুল পড়া, পাতলা হয়ে যাওয়া, চুলের রেখা কমে যাওয়া, টাকের দাগ বা চুলের ত্বকে জ্বালাপোড়া করছেন, তাহলে চুলের স্বাস্থ্যের বিষয়ে বিশেষজ্ঞ স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারের সাথে পরামর্শ করা। তারা আপনার ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে মূল্যায়ন করতে পারে, অন্তর্নিহিত কারণ নির্ধারণ করতে পারে এবং আপনার অতিরিক্ত চুল পড়া সমস্যাগুলি কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে আপনাকে পরামর্শ দিতে পারে। তবে উপযুক্ত চিকিৎসা বা প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থার সুপারিশ করতে পারে।

আপনি হয়তো এতক্ষণ চুল পড়ার কারণ, লক্ষণ ও উপসর্গ সম্পর্কে জানতে পারলেন। এখন তাহলে জেনে নিন চুল পড়া বন্ধ করার কিছু ঘরোয়া প্রতিকার। আর এই ঘরোয়া প্রতিকারের মাধ্যমে আপনার চুল পড়া বন্ধ করার সঠিক কৌশল হতে হিসেবে হয়ে উঠতে পারে:

ঘৃতকুমারী:

ঘৃতকুমারী একটি বহুমুখী উদ্ভিদ যা স্বাস্থ্য সৌন্দর্যের সুবিধার জন্য পরিচিত। এতে এনজাইম রয়েছে যা চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে এবং ক্ষতিগ্রস্ত চুলের ফলিকল মেরামত করতে সাহায্য করে। অ্যালোভেরার পাতা থেকে জেল বের করে সরাসরি আপনার মাথার ত্বকে লাগান। এটি প্রায় ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপরে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অ্যালোভেরার উপকারিতা পেতে নিয়মিত ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার চুলকে মজবুত করবে এবং চুল পড়া উল্লেখযোগ্যভাবে কমাবে।

নারকেল তেল ম্যাসাজ:

চুলের পুষ্টি ও মজবুত করতে বহু শতাব্দী ধরে নারকেল তেল ব্যবহার হয়ে আসছে। এটি অত্যাবশ্যকীয় ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ যা চুলের খাদ ভেদ করে, চুল ভাঙ্গা রোধ করে এবং স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধির প্রচার করে। এটি ব্যবহারের জন্য কিছু নারকেল তেল গরম করে আপনার মাথার ত্বকে আলতো করে ম্যাসাজ করুন। সারারাত রেখে পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন। নারকেল তেল দিয়ে নিয়মিত তেল মালিশ করলে চুল পড়া রোধে বিস্ময়কর কাজ করতে পারে।

ডিমের মাস্ক:

ডিম শুধু একটি পুষ্টিকর খাবারই নয় বরং এটি একটি চমৎকার প্রাকৃতিক চুলের যত্নের উপাদান। এগুলিতে প্রচুর প্রোটিন এবং প্রয়োজনীয় পুষ্টি রয়েছে যা চুলের গোড়া মজবুত করে, চুল পড়া কমায় এবং চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়। একটি ডিম বিট করুন এবং এতে এক চা চামচ অলিভ অয়েল যোগ করুন। আপনার চুল এবং মাথার ত্বকে মিশ্রণটি প্রয়োগ করুন, এটি ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলার আগে প্রায় ২০ মিনিটের মত রেখে দিন। ভালো ফলাফলের জন্য সপ্তাহে একবার এই ডিমের মাস্কটি ব্যবহার করুন।

মেথি বীজ:

মেথি, মেথি নামেও পরিচিত, শতাব্দী ধরে চুলের যত্নে আয়ুর্বেদিক ওষুধে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এতে প্রোটিন এবং নিকোটিন অ্যাসিড রয়েছে, যা চুল বৃদ্ধি সহ চুলের ফলিকল পুনর্গঠনে সাহায্য করে। কিছু মেথি বীজ রাতারাতি ভিজিয়ে রাখুন, তারপর পেস্ট করে আপনার মাথার ত্বকে লাগান। এটি ৩০ মিনিটের মত রেখে দিন, তারপরে একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মেথি বীজের পেস্টের নিয়মিত ব্যবহার অতিরিক্ত চুল পড়া নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং চুল মজবুত করে।

আমলকি ও পেঁয়াজের রস

আমলকি এবং পেঁয়াজের রস দীর্ঘদিন ধরে চুল পড়া রোধ এবং চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রাকৃতিক প্রতিকার হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই দুটি’র শক্তিশালী উপাদান বেশিরভাগ বাড়িতে সহজেই পাওয়া যায় এবং মাথার ত্বকে পুষ্টি জোগাতে এবং চুলের ফলিকলকে শক্তিশালী করার ক্ষমতার জন্য জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। এখানে, আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব কীভাবে আমলকি এবং পেঁয়াজের রস আপনার চুলের উপকার করতে পারে এবং কীভাবে সেগুলিকে আপনার চুলের যত্নের রুটিনে অন্তর্ভুক্ত করবেন।

আমলকির রস

আমলকি, যা ভারতীয় গুজবেরি বা আমলা নামেও পরিচিত। এটিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের, খনিজ রয়েছে যা চুলের স্বাস্থ্যে অবদান রাখে। আমলকির রস নিয়মিত প্রয়োগের ফলে চুলের খাদকে শক্তিশালী করে এবং মাথার ত্বকে পুষ্টি জোগায়, এতে চুল পড়া রোধ করতে সাহায্য করে।

আমলকির রস তৈরি করতে কয়েকটি আমলকি ফল নিয়ে সেগুলোর বীজ বের করে নিন। ফলগুলিকে পেস্ট কেরার জন্য পিষে নিয়ে রস বের করুন। আপনি এই রস আপনার মাথার ত্বকে এবং চুলে ম্যাসাজ করুন। একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলার আগে এটি প্রায় ৩০ মিনিট থেকে এক ঘন্টার জন্য রেখে দিন। চুল পড়া রোধে আমলকির রসের উপকারিতা দেখতে সপ্তাহে অন্তত একবার এই প্রক্রিয়াটি ব্যবহার করুন।

পেঁয়াজের রস

চুলের বৃদ্ধির জন্য পেঁয়াজের রস একটি অলৌকিক উপাদান হিসাবে কাজ করে। এটি সালফার সমৃদ্ধ, যা কোলাজেন উৎপাদন বাড়াতে সাহায্য করে চুলকে শক্তিশালী করে। সালফার মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। তাছাড়া এটি নিশ্চিত করে যে চুলের ফলিকলগুলি বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণ করে। বিশেষ করে, পেঁয়াজের রসে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা মাথার ত্বকের সংক্রমণ এবং চিরতরে খুশকি দূর করতে লড়াই করতে পারে।

পেঁয়াজের রস তৈরি করতে, একটি মাঝারি আকারের পেঁয়াজ খোসা ছাড়িয়ে নিন। পেঁয়াজ মিশ্রিত করুন বা গ্রেট করুন, তারপর একটি ছাঁকনি ব্যবহার করে এর রস বের করুন। এই রস সরাসরি আপনার মাথার ত্বকে লাগান, লাগানোর কয়েক মিনিটের জন্য আলতোভাবে ম্যাসাজ করুন। একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলার আগে এটি প্রায় ১৫-২০ মিনিটের জন্য বসতে দিন। পেঁয়াজের তীক্ষ্ণ গন্ধ বিরক্ত হতে পারে, এই গন্ধ কমানোর জন্য আপনি এটিকে কয়েক ফোঁটা এসেনশিয়াল অয়েলের সাথে মেশাতে পারেন। পরে হালকা কন্ডিশনার দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে ফেলতে পারেন।

সর্বোত্তম ফলাফলের জন্য, আপনি আমলকি এবং পেঁয়াজের রস একত্রিত করে একটি শক্তিশালী চুল পড়ার চিকিৎসা তৈরি করতে পারেন। একটি পাত্রে আমলকি এবং পেঁয়াজের রস সমানভাবে মিশিয়ে আপনার মাথার ত্বকে এবং চুলে ভালোভাবে লাগান। তারপর আলতোকরে ম্যাসাজ করুন, এটি শিকড় এবং follicles পশা অনুমতি দেয়। ৩০ থেকে ৬০ মিনিটের জন্য রেখে দিন, তারপর এটি ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন। আমলকি এবং পেঁয়াজের রসের এই সংমিশ্রণটি আপনার চুলের পুষ্টি শক্তিশালী ডোজ প্রদান করে, আপনার চুল পড়া কমাতে এবং স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

স্বাস্থ্যকর চুল বজায় রাখার ক্ষেত্রে, বিভিন্ন তেল ব্যবহার করা যেতে পারে। তেল বহু শতাব্দী ধরে চুলের বৃদ্ধি, ঘন করতে ও অতিরিক্ত চুল পড়া রোধ করতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পুষ্টিতে ভরপুর, অপরিহার্য তেল চুলের বিভিন্ন সমস্যা মোকাবেলায় একটি প্রাকৃতিক সমাধান দেয়।

জেনে নিন আপনার চুলের বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু প্রয়োজনীয় তেলের নাম ও কার্যকারিতা সম্পর্কে:

ল্যাভেন্ডার তেল:

এই তেল গন্ধের জন্য পরিচিত, ল্যাভেন্ডার তেল চুলের বৃদ্ধির জন্য অবিশ্বাস্য উপকারিতা নিয়েও গর্ব করে। এই অপরিহার্য তেল চুলের ফলিকলগুলিকে সতেজ করে, মাথার ত্বকের রক্ত সঞ্চালনকে উৎসাহিত করে এবং স্ট্র্যান্ডগুলিকে ময়শ্চারাইজ করে। মাথার ত্বকে পুষ্টি দিয়ে রক্ত প্রবাহের উন্নতি করে, ল্যাভেন্ডার তেল চুল পড়া রোধ করতে সাহায্য করে পাশাপাশি নতুন চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে।

রোজমেরি তেল:

রোজমেরি তেল চুলের স্বাস্থ্য উন্নত করতে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এই তেলটি চুলের ফলিকলগুলিকে সতেজ করার পাশাপাশি, মাথার ত্বকে রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি করার ক্ষমতার জন্য পরিচিত। রোজমেরি তেল চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে এবং অকালে চুল রোধ করতে সাহায্য করে।

পেপারমিন্ট তেল:

পেপারমিন্ট তেল শুধুমাত্র একটি সতেজ ও প্রাণবন্ত ঘ্রাণই দেয় না, এটি চুলের বৃদ্ধিকেও সমর্থন করে। এই তেল ব্যবহার করলে রক্তনালীগুলিকে প্রশস্ত করে এবং রক্ত প্রবাহ সঞ্চালন করে। পেপারমিন্ট তেল চুলের বৃদ্ধির সাথে সাথে চুলের শিকড়কে শক্তিশালী করে।

সিডারউড তেল:

সিডার গাছ থেকে প্রাপ্ত, সিডারউড তেল। এই তেল চুল পড়ার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য একটি চমৎকার কাজ করে। সিডারউড তেল মাথার ত্বকে তেল উৎপাদনের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে, যা খুশকি এবং অতিরিক্ত সিবাম প্রতিরোধ করতে পারে। তাছাড়া মাথার ত্বককে স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিকর রেখে, চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে চুল পড়া কমায়।

চা গাছের তেল:

চা গাছের তেল শক্তিশালী অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্যের জন্য পরিচিত। চা গাছের তেল মাথার ত্বকের সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এই তেল ব্যবহারের ফলে মৃত ত্বকের কোষগুলিকে সরিয়ে ফেলে, চুলের ফলিকলগুলিকে বন্ধ করে দেয় এবং মাথার ত্বককে চুলকানি প্রশমিত করে। চা গাছের তেল চুলের খাদকে শক্তিশালী করে চুল পড়া কমিয়ে ফেলতে সহায়তা করে।

উপসংহারে:

মনে রাখবেন, আপনার জন্য  চুল পড়ার সাধারণ কারণগুলি বোঝা এবং সহজ ঘরোয়া প্রতিকারগুলি প্রয়োগ করে চুল পড়া রোধ এবং স্বাস্থ্যকর, মজবুত চুলের প্রচারের জন্য দীর্ঘ পথ যেতে পারে। এছাড়াও কঠোর রাসায়নিক এড়ানো, সুষম খাদ্য বজায় রাখা, স্ট্রেস লেভেল পরিচালনা করে মাথার ত্বকের স্বাস্থ্যবিধি অনুশীলন করে প্রাকৃতিকভাবে চুল পড়া প্রতিরোধ করতে পারেন।

যদিও চুল পড়া একাধিক কারণের দ্বারা প্রভাবিত হতে পারে, এই ঘরোয়া টিপসগুলি একটি দুর্দান্ত পয়েন্ট হতে পারে। মনে রাখবেন, আপনার ধৈর্য চুলের স্বাস্থ্যের নিয়ন্ত্রণের সাথে আসা আত্মবিশ্বাস এবং সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারেন। তাই, প্রাকৃতিক পদ্ধতিগুলিকে আপনার দৈনন্দিন রুটিনে অন্তর্ভুক্ত করা শুরু করুন এবং অতিরিক্ত চুল পড়া সমস্যাকে বিদায় বলুন।

সূত্র:- Right News BD

2 thoughts on “অতিরিক্ত চুল পড়া আর নয়: জেনে নিন আপনার চুল পড়া বন্ধ করার ঘরোয়া উপায়

Comments are closed.

bn_BDBengali